নিউইয়র্ক     বৃহস্পতিবার, ৮ই জুন, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ  | ২৫শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সৈকতে শত শত মৃত জেলিফিশ

বাংলাদেশ ডেস্ক

প্রকাশ: ১১ নভেম্বর ২০২২ | ১১:২১ পূর্বাহ্ণ | আপডেট: ১১ নভেম্বর ২০২২ | ১১:২১ পূর্বাহ্ণ

ফলো করুন-
সৈকতে শত শত মৃত জেলিফিশ

বাংলাদেশ ওশানোগ্রাফিক রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (বোরি) মহাপরিচালক ও সমুদ্রবিজ্ঞানী সাঈদ মাহমুদ বেলাল হায়দার বলেন, ‘বিভিন্ন সময়ে এসব সাদা নুইন্যা মৎস্যজীবীদের বিহুন্দি জালে অযাচিতভাবে আটকা পড়ে মারা যায়। পরবর্তীতে কক্সবাজার, পটুয়াখালীসহ দেশের বিভিন্ন সমুদ্র সৈকতে ভেসে আসে। অযত্ন অবহেলায় সৈকতে পড়ে থাকা এই সাদা নুইন্যা বা হোয়াইট টাইপ জেলিফিশ খাদ্য হিসেবে ও প্রসাধন শিল্পে ব্যবহার হয়।’

কক্সবাজার সমুদ্রসৈকতের কলাতলী পয়েন্টে শত শত ‘সাদা নুইন্যা’ বা ‘হোয়াইট টাইপ জেলিফিশ’ মৃত অবস্থায় ভেসে এসেছে। ভাটার সময় এসব জেলিফিশ সৈকতে দেখা গেছে। শুক্রবার সকাল থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত সৈকতের কলাতলী পয়েন্টে এসব মৃত জেলিফিশ ভেসে আসে। এ সময় বাংলাদেশ ওশানোগ্রাফিক রিসার্চ ইনস্টিটিউটের কর্মকর্তারা সেখানে গিয়ে বিভিন্ন বিষয়ে যাচাই-বাছাই করেন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এখন পর্যন্ত বিজ্ঞানীদের জানা দুই হাজার প্রজাতির জেলিফিশের মধ্যে মাত্র যে ১২ জাতের জেলিফিশের খাদ্যমান আছে তার মধ্যে সাদা নুইন্যা বা হোয়াইট টাইপ জেলিফিশ অন্যতম এবং এটি খাদ্য হিসেবে বিভিন্ন দেশে বেশ জনপ্রিয়। এই জেলিফিসটির অন্যতম বিচরণক্ষেত্র হচ্ছে বঙ্গোপসাগরের কক্সবাজার উপকূল।

বাংলাদেশ ওশানোগ্রাফিক রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (বোরি) মহাপরিচালক ও সমুদ্রবিজ্ঞানী সাঈদ মাহমুদ বেলাল হায়দার বলেন, ‘বিভিন্ন সময়ে এসব সাদা নুইন্যা মৎস্যজীবীদের বিহুন্দি জালে অযাচিতভাবে আটকা পড়ে মারা যায়। পরবর্তীতে কক্সবাজার, পটুয়াখালীসহ দেশের বিভিন্ন সমুদ্র সৈকতে ভেসে আসে। অযত্ন অবহেলায় সৈকতে পড়ে থাকা এই সাদা নুইন্যা বা হোয়াইট টাইপ জেলিফিশ (Lobonemoides robustus) খাদ্য হিসেবে ও প্রসাধন শিল্পে ব্যবহার হয়।

‘বঙ্গোপসাগর সাদা নুইন্যার অন্যতম আবাস হলেও আমাদের দেশে এর কোন ব্যবহার নেই। অথচ বিশ্বে জেলিফিশের ৫ দশমিক ৬০ বিলিয়ন ডলারের বাজার রয়েছে। আমরাও এই অবহেলিত সামুদ্রিক পণ্যটির স্থানীয় বাজার সৃষ্টিসহ রপ্তানি করে সুনীল অর্থনীতিতে অনন্য ভূমিকা রাখতে পারি।’

শেয়ার করুন