বৃহস্পতিবার ২৬ মে ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
নিউইয়র্ক থেকে প্রকাশিত
পরিচয়
কমিউনিটি

বয়স্কদের সেবায় নিবেদিত বহুমুখী স্বাস্থ্য সেবা প্রতিষ্ঠান গোল্ডেন এজ হোম কেয়ার

নিউইয়র্কে বাংলাদেশী আসেরিকান মালিকানাধীন হোম কেয়ার এজেন্সি গুলোর মধ্যে অন্যতম বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শাহ নেওয়াজের পরিচালনাধীন গোল্ডেন এজ হোম কেয়ার শুধু বয়স্ক মানুষের স্বাস্থ্য সেবার ব্যবস্থাই করেনি। যারা স্বাস্থ্য সেবায় নিয়োজিত তাদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থাও নিশ্চিত করেছে। হোম কেয়ার এজেন্সি গুলো সাধারণত সিডিপাপ সার্ভিসের মাধ্যমে পরিবারের মা-বাবা-শ্বশুড়-শাশুড়ি বা বয়স্ক অন্যান্যদের সেবাদানের ব্যবস্থা করে থাকে। এই প্রক্রিয়ায় পরিবারের যারা সেবক হিসেবে কাজ করেন তারা ঘন্টা হিসেবে নিউইয়র্ক স্টেট স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে নির্ধারিত পরিমাণে বেতন পেয়ে থাকেন। যা চাকুরি হিসেবে গণ্য করা হয়। একসময় হোম কেয়ার ব্যবসা ছিলো অন্যান্য কমিউনিটির নিয়ন্ত্রণে। বিগত চার-পাঁচ বছর যাবত নিউইয়র্কে বাংলাদেশী মালিকানাধীন বেশ কয়েকটি হোমকেয়ার সার্ভিস বয়স্কদের সেবায় ব্যবস্থা করে আসছে। এতে একদিকে পরিবারের অবহেলিত বয়স্করা সেবা গ্রহণের সুযোগ পাচ্ছেন। অপরদিকে পরিবারের যে সব সদস্য সেবা প্রদান করছেন তারাও আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন। সিডিপ্লাপের ক্ষেত্রে কোন প্রশিক্ষণের প্রয়োজন নেই। এই সহজ প্রক্রিয়ার ফলে গোটা পরিবারের যেমন স্বচ্ছলতা এসেছে তেমনি বৃদ্ধি পাচ্ছে পারিবারিক সহমর্মিতা। পারিবারিক সম্পধীতির ক্ষেত্রেও হোম কেয়ার পালন করছে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। অনেক ক্ষেত্রে পরিবারের বয়স্কদের সেবা প্রদানের মতো কেউ থাকে না। সেক্ষেত্রে প্রয়োজন পড়ে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত স্বাস্থ্য সেবক-সেবিকার। বিশেষ করে হোম হেলথ এইড, এইচএইচএ এবং পেশেন্ট কেয়ার এসোসিয়েটস বা পিসিএ। এইচএইচএ এবং পিসিএ সার্ভিসের জন্য প্রয়োজন হয় স্বল্পমেয়াদী প্রশিক্ষণের। সব হোম কেয়ার এজেন্সিতে এধরণের প্রশিক্ষণের সুযোগ নেই।

গোল্ডেন এজ হোম কেয়ার এজেন্সিতে নিয়মিত সিডিপ্লাপ সার্ভিসের পাশাপাশি রয়েছে এইচএইচএ ও পিসিএ প্রশিক্ষণের সুব্যবস্থা। এজন্য লেক্সা নামে বিশেষ একটি লাইসেন্স নিতে হয় নিউইয়র্ক স্টেট হেলথ ডিপার্টমেন্ট থেকে। গোল্ডেন এজ হোম কেয়ার’র লেক্সা থাকায় প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তুলেছে ক্যারিয়ার একাডেমী অব নিউইয়র্ক। শুধু এইচএইচএ বা পিসিএ প্রশিক্ষণ ব্যবস্থাই নয় দক্ষ নার্সিং প্রশিক্ষণের ব্যবস্থাও রয়েছে গোল্ডেন এজ হোম কেয়ারের এই প্রশিক্ষণ একাডেমীতে। ফলে প্রতিষ্ঠানটি পরিণত হয়েছে ওয়ান স্টপ সার্ভিস সেন্টারে। একই ছাদের নীচে স্বাস্থ্য সেবা ক্ষেত্রে অনেকগুলো সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছে গোল্ডেন এজ হোমকেয়ার। হোম কেয়ার কোম্পানী গোল্ডেন এজ ইতোমধ্যেই নিউইয়র্কে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে বলে জানান এ প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান শাহ নেওয়াজ। তিনি বলেন, গোল্ডেন এজ অন্য কোন প্রতিষ্ঠানের শাখা নয়। এটি নিউইয়র্ক স্টেট হেলথ ডিপার্টমেন্টের লাইসেন্সধারী একটি পূর্নাঙ্গ প্রতিষ্ঠান। গোল্ডেন এজ হোম হেলথ কেয়ার এজেন্সির আওতায় সিডিপ্যাপ সহ রয়েছে এইচ এইচ এ, পিসিএ এবং নার্সিং সার্ভিস প্রদানের ব্যবস্থা। শাহ নেওয়াজ জানান, গোল্ডেন এজ হোমকেয়ার-এর ৮টি শাখা। প্রধান অফিস জ্যাকসন হাইটস ছাড়াও জ্যামাইকার হিলসাইড এভিনিউ ও জ্যামাইকা এভিনিউ, ওজনপার্ক, ব্রুকলীন, ব্রনক্স, ইয়ংকার্স, ষ্টেটান আইল্যান্ড-এ রয়েছে হোমকেয়ারের শাখা। এ প্রসঙ্গে প্রতিষ্ঠানটির প্রেসিডেন্ট এবং প্রধান নির্বাহী শাহ নেওয়াজ বলেন, গোল্ডেন এজ হোমকেয়ার স্বাস্থ্য সেবার ক্ষেত্রে একটি স্বয়ংসম্পূর্ন সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান।

বাংলাদেশীদের মধ্যে যারা বেকার বা স্বল্প বেতনে কাজ করছেন তারা ক্যারিয়ার একাডেমী অব নিউইয়র্ক থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে নিজেদের ভাগ্য বদলে দিতে পারেন বলে মন্তব্য করেন শাহ নেওয়াজ। ক্যারিয়ার একাডেমী অব নিউইয়র্ক স্টেট এডুকেশন ডিপার্টমেন্টের অনুমোদিত একটি প্রতিষ্ঠান। এই ক্যারিয়ার একাডেমিতে যে কেউ প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে পারবেন, এমন কি অন্য হোমকেয়ার এজেন্সীও তাদের এইচএইচএ/পিসিএ’র জন্য প্রার্থীদের পাঠাতে পারবে প্রশিক্ষণের জন্য। একজন প্রার্থীকে কাজ শুরুর আগে ৮৪ ঘন্টা প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে হবে। এই প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম অতি সত্ত্বরই শুরু হবে বলে জানান তিনি। ইতোমধ্যেই ব্রুকলীনে একাডেমী চালুর কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। যেসব হোম কেয়ার এজেন্সির লাক্সা নেই তারা এইচএইচএ এবং পিসিএ প্রশিক্ষণের জন্য গোল্ডেন এজ হোম কেয়ারের ক্যারিয়ারের সেন্টারে আগ্রহীদের পাঠাতে পারেন বলে জানান শাহ নেওয়াজ। হোম কেয়ার কোম্পানী গোল্ডেন এজ ইতোমধ্যেই নিউইয়র্কে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে বলে জানান এ প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান শাহ নেওয়াজ। তিনি সবগুলো প্রতিষ্ঠানই দেখাশুনা ও দক্ষতার সাথে পরিচালনা করছেন। এই ক্যারিয়ার একাডেমীতে শিগগিরই ক্লাস শুরু হবে।

এদিকে শাহ নেওয়াজ প্রতিষ্ঠিত এনওয়াই ইন্সুরেন্স কোম্পানীর একই ছাদের নীচ থেকে যে কেউ গ্রহণ করতে পারেন আরো বেশ ক’টি সেবা। যেমন হোম ইন্সুরেন্সের সুযোগ রয়েছে তার এখানে। বহুমাত্রিক এই প্রতিষ্ঠান থেকেই তিনি কাজ করেন লাইফ ইন্সুরেন্স এজেন্ট হিসেবে। নিউইয়র্ক লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানীর ‘এক্সক্লুসিভ ব্রোকার’ হিসেবে বিশেষ সুনাম রয়েছে জনাব শাহ নেওয়াজ’র। খ্যাতিমান এ লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানী থেকে এওয়ার্ডও পেয়েছেন তিনি। এসব ছাড়াও লায়াবিলিটিস, ওয়ার্কার্স কমপেনসেশন ও ডিসএবিলিটি ইন্সুরেন্সের ক্ষেত্রে বিশেষ অভিজ্ঞতা রয়েছে বলে জানান তিনি। জ্যাকসন হাইটসের ৭১- ১৬, ৩৫ এভিনিউর ঠিকানায় এন ওয়াই ইন্সুরেন্স অফিস সপ্তাহে ৬দিনই খোলা থাকে। প্রায় এক ডজন কর্মচারী-কর্মকর্তা সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত কাজ করেন অফিসে। সময়ের ব্যবধানে এন ওয়াই ইন্স্যুরেন্স ব্রোকারেজ এর পাশাপাশি আরো কয়েকটি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন শাহ নেওয়াজ। তার মধ্যে ট্যাক্সি বেইজ এনওয়াই কার এন্ড লিমো। এন ওয়াই ইন্সুরেন্সের সহযোগী প্রতিষ্ঠান এন ওয়াই লিমু কার সার্ভিসের একটি পূর্নাঙ্গ প্রতিষ্ঠান। উবারের মতোই এর কার্যক্রম। এনওয়াই লিমুজিন বেইজ’র প্রায় ৯ হাজার ট্যাক্সি সার্বক্ষণিক গ্রাহক সেবায় নিয়োজিত বলে জানান শাহ নেওয়াজ। তার প্রতিষ্ঠিত এস এস আর রিয়েল এস্টেট কোম্পানীও অত্যন্ত সুনামের সাথে ব্যবসায় করে যাচ্ছে।

বিভিন্ন সংস্থা থেকে এজন্য বেশ কয়েকটি পুরস্কারও লাভ করেছেন তিনি। ট্যাক্সি-লিমুজিন কমিশন, টিলসি তাকে ‘রাইটিং এওয়ার্ড’ প্রদান করেছে। ‘বেস্ট ব্রোকার’ এওয়ার্ড পেয়েছেন হার্ডফোড ইন্সুরেন্স কোম্পানী থেকে। ব্যবসায়ের পাশাপাশি বিভিন্ন পেশাজীবী, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সম্পৃক্ত রয়েছেন তিনি। জ্যাকসন হাইটস বাংলাদেশী বিজনেস এসোসিয়েশনের বর্তমান প্রেসিডেন্ট শাহ নেওয়াজ। আমেরিকা বাংলাদেশ বিজনেস অ্যালায়েন্সের বোর্ড অব ডাইরেক্টরস’র চেয়ারম্যানের দায়িত্বও পালন করছেন শাহ নাওয়াজ। লায়ন্স ক্লাব-‘২০ আর ২১’ এর দু’বার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন তিনি। কুইন্স বরো কম্যুনিটি বোর্ড-১২ এর সদস্য ও সাউথ এশিয়ান ভোটারস এসোসিয়েশনেরও অন্যতম কর্মকর্তা। ফোবানার-২০১৯ এর সাবেক চেয়ারম্যান শাহ নেওয়াজ জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটির অন্যতম উপদেষ্টা। নিউইয়র্কের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের অন্যতম পৃষ্ঠপোষক শাহ নাওয়াজের বাড়ি বাংলাদেশের খুলনা জেলায়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে মাস্টার্স এবং আইবিএ থেকে এমবিএ ডিগ্রি অর্জন করেন শাহ নেওয়াজ। এছাড়া বিজনেস ম্যানেজমেন্টের ওপর ডিপ্লোমাও করেছেন তিনি। আমেরিকার অভিবাসন গ্রহণের পূর্বে ঢাকায় ছিলো তার গার্মেন্টস সহ অন্যান্য ব্যবসা। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি এক কন্যা ও এক পুত্র সন্তানের জনক। তার স্ত্রী রানু নেওয়াজ নিউইয়র্কের বিশিষ্ট সঙ্গীত শিল্পী। প্রায় এক যুগের অধিক সময় ধরে নিউইয়র্কে বসবাস করছেন তিনি।

ছোটবেলা থেকেই সমাজসেবার প্রতি তার অন্য রকম ঝোক ছিলো। স্কুল জীবন থেকে মানুষের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখার চেষ্টা করেছেন। প্রবাসী জীবনের আগে দেশের বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে থেকে মানব সেবায় কাজ করেন।
যারা প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে চান তারা যোগাযোগ করতে পারেন ৬৪৬-৫৯১-৮৩৯৬ নম্বরে।

সোস্যাল শেয়ার :

Related posts

মন্তব্য করুন

Share
Share