নিউইয়র্ক     বৃহস্পতিবার, ১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ  | ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশী আমেরিকান স্কুল সেফটি অফিসারদের বনভোজন অনুষ্ঠিত

পরিচয় ডেস্ক

প্রকাশ: ২৮ জুলাই ২০২২ | ১২:৪৬ অপরাহ্ণ | আপডেট: ১০ আগস্ট ২০২২ | ১০:২৭ পূর্বাহ্ণ

ফলো করুন-
বাংলাদেশী আমেরিকান স্কুল সেফটি অফিসারদের বনভোজন অনুষ্ঠিত

নিউইয়র্ক সিটি পুলিশ ডিপার্টমেন্টে কর্মরত বাংলাদেশী স্কুল সেফটি অফিসারদের সংগঠন বাংলাদেশী-আমেরিকান স্কুল সেফটি অ্যাসোসিয়েশন (বাসসা) আয়োজিত তৃতীয় বার্ষিক বনভোজন গত ২৪ জুলাই রোববার নিউইয়র্কের লংআইল্যান্ডের বেলমন্ট লেক স্টেট পার্কে অনুষ্ঠিত হয়। দিনব্যাপী বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত স্কুল সেফটি অফিসারগণ ও তাদের পরিবারের সদস্যরা যোগ দেন এই মিলনমেলায়। প্রকৃতির নয়নাভিরাম সবুজে ঘেরা বেলমন্ট লেক স্টেট পার্কের ব্রিচ প্যাভিলিয়ন পিকনিকের স্থানটি হয়ে ওঠে যেনো একটুকরো বাংলাদেশ।

বনভোজন শুরু হয় সকাল দশটায়। সকাল থেকেই নিউইয়র্কের বিভিন্ন এলাকা থেকে অংশগ্রহণকারীরা জড়ো হতে থাকেন। সকাল সাড়ে দশটার দিকে সকালের নাশতা বিতরণ করা হয়। দেশী আমেজে গরমের আরাম তরমুজ, কলা ও বিভিন্ন রকমের ফাস্ট ফুড দিয়ে অতিথিদের আপ্যায়ন করা হয় এবং অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকোল শিশুদেরকে হরেক রকমের খেলনা উপহার দেয়া হয়।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত অতিথী নিউইয়র্ক পুলিশের স্কুল সেফটি ডিভিশনের কুইন্স নর্থ কমান্ডার বরো ক্রিস্টিয়ান রাঙ্গেল, ব্রæকলীন নর্থ বরো কমান্ডার জোসেফিন টোরলন এবং এক্সো সোটো তারাও সবার সাথে খেলাধুলা ও আনন্দে মেতে ওঠেন।

সকালের নাস্তা গ্রহণের পর শুরু হয় মূল পর্ব ছোটদের ও বড়দের খেলাধুলার অনুষ্ঠান। এতে স্কুল সেফটি অফিসারদের পরিবার ও সন্তানেরা অংশ নেয়। বিভিন্ন রকম দৌড় প্রতিযোগিতা, বালিশ যুদ্ধ, হাঁড়িভাঙা খেলাসহ নানান রকম খেলায় অংশ নেয় প্রতিযোগিরা। শরিফ খান, লোকমান, শিবলী, মাহমুদুর খান ও মোহাম্মদ হালিম পুরো সময় জুড়ে খেলাধুলার অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন।

দুপুরে ছিলো সম্পূর্ণ বাঙালী ভুরিভোজের আয়োজন। খাসি ও মুরগির মাংস, পোলাও, সবজি, কাবাব, সালাদ ছাড়াও ছিলো দেশীয় স্বাদের পায়েস। খাবারের দায়িত্বে ছিলেন আনোয়ার, রাহি, শফিক, তৌহিদ, রিপা, মহিতুর, পারভীন ও শারমিন।

দুপুরের খাবারের পর শুরু হয় পরিচিতি পর্ব এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। বাসসা সদস্য ও তাদের পরিবারের মধ্য থেকে অনেকেই সংগীত পরিবেশন করেন। বাসসার নিয়মিত শিল্পী ঝুলন সেন পুরো অনুষ্ঠান মাতিয়ে রাখেন। তার দরদভরা কন্ঠে সবাই বিমোহিত হন। এসময় গানের তালে বাসসা সদস্যরা ছন্দময় নৃত্য করেন।

সবশেষে ছিলো পুরস্কার বিতরণী ও আকর্ষণীয় রাফেল ড্র। তরিকুল ইসলামের সাবলীল উপস্থাপনায় উপস্থিত সবাই মিলাতে থাকেন টিকিটের নাম্বার। রাফেল ড্রতে ছিলো সোনার চেইন, টিভি, ল্যাপটপ, ট্যাবলেট, স্মার্ট ফোন সহ অনেক আকর্ষণীয় সব পুরস্কার।

বাসসা সভাপতি মোহাম্মদ মাসুম মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক তরিকুল ইসলাম মিঠু জানান, বাংলাদেশী আমেরিকান স্কুল সেফটি অফিসার ও তাদের পরিবার সমূহের মাঝে পারস্পারিক যোগাযোগ ও পরিচয় ঘটানো এবং পারস্পরিক সহযোগীতার মনোভাব গড়ে তোলার জন্যই তারা এই ধরনের অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন এবং ভবিষ্যতেও এই ধারা অব্যাহত থাকবে।

শেয়ার করুন