নিউইয়র্ক     বৃহস্পতিবার, ১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ  | ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নির্বাচনে জিতুন বা হারুন, ফলাফল মেনে নিতে হবে: বাইডেন

পরিচয় ডেস্ক

প্রকাশ: ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ০৭:৪২ পূর্বাহ্ণ | আপডেট: ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ০৭:৪২ পূর্বাহ্ণ

ফলো করুন-
নির্বাচনে জিতুন বা হারুন, ফলাফল মেনে নিতে হবে: বাইডেন

সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তার এমএজিএ (মেক আমেরিকা গ্রেট এগেইন) রিপাবলিকান চরমপন্থিরা যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্রকে হুমকি দিচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। এমনকি রিপাবলিকানদের সবাই মেক আমেরিকা গ্রেট এগেইন নীতিতে বিশ্বাস করে না বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনার টেম্পে এক অনুষ্ঠানে তিনি এই মন্তব্য করেন। শুক্রবার (২৯ সেপ্টেম্বর) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তার রিপাবলিকান প্রতিদ্বন্দ্বী ডোনাল্ড ট্রাম্পকে কটাক্ষ করে বলেছেন, সাবেক এই প্রেসিডেন্টের মেক আমেরিকা গ্রেট এগেইন (এমএজিএ) ক্যাম্পেইন আসলে একটি চরমপন্থি আন্দোলন। এটি মার্কিন গণতন্ত্রের মৌলিক ধারণায় বিশ্বাস করে না।

আল জাজিরা বলছে, স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার অ্যারিজোনার টেম্পে প্রয়াত সিনেটর জন ম্যাককেইনকে সম্মান জানানোর একটি অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন প্রেসিডেন্ট বাইডেন। সেখানে তিনি বলেন, রিপাবলিকানদের সবাই এই আন্দোলন বা ক্যাম্পেইনকে মেনে চলে না এবং এই দলটি বর্তমানে ‘মাগা (এমএজিএ) রিপাবলিকান চরমপন্থিদের মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে’। বাইডেন বলেন, ‘যেমনটি আমরা জানি, এই দলটির সবচেয়ে বড় এজেন্ডা হচ্ছে আমেরিকান গণতন্ত্রের প্রতিষ্ঠানগুলোকে মৌলিকভাবে পরিবর্তন করা।’

২০২৪ সালের নভেম্বর মাসে যুক্তরাষ্ট্রে পরবর্তী প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সেই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন বলে ইতোমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছেন। অন্যদিকে দ্বিতীয় দফায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট হতে আবারও নির্বাচনের লড়াইয়ে নামার কথা বহু আগে থেকেই বলে আসছেন জো বাইডেনও।

২০২০ সালের সর্বশেষ নির্বাচনে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে পরাজিত করেছিলেন বাইডেন। তবে অতীতের সেই পরাজয়ের পরও আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হিসেবে মনোনয়নের দৌড়ে থাকা রিপাবলিকান পার্টির অন্য নেতাদের চেয়ে এবার জনমত জরিপে এগিয়ে রয়েছেন ট্রাম্প।

আর তাই সামনের বছরের নির্বাচনে বাইডেন এবং ট্রাম্প ফের মুখোমুখি হতে পারেন। মূলত সেই নির্বাচনকে সামনে রেখে মার্কিন গণতন্ত্র এবং রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে রক্ষা করার বিষয়টিকে প্রধান ইস্যু হিসেবে সামনে এনেছেন জো বাইডেন। আর এটি করার মাধ্যমে ডেমোক্র্যাটিক এই প্রেসিডেন্ট তার রিপাবলিকান পূর্বসূরি ট্রাম্পের অবস্থানকে দুর্বল করতে জোরালো আঘাত হানতে পারবেন বলে আশা করছেন।

আল জাজিরা বলছে, বৃহস্পতিবার নিজের এই বক্তৃতার সময় প্রেসিডেন্ট বাইডেন তার পূবসূরি ট্রাম্পের নাম খুব কমই উল্লেখ করেছিলেন। তারপরও বাইডেনের বক্তব্যের বেশ বড় অংশজুড়ে ছিলেন ট্রাম্প। মূলত এদিনের বক্তব্যে প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে ২০২০ সালের নির্বাচনের ফল উল্টে দেওয়ার বিষয়ে ট্রাম্পের প্রচেষ্টার কথাই উল্লেখ করেন বর্তমান প্রেসিডেন্ট।

প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেন, ‘গণতন্ত্র মানে জনগণের শাসন। রাজাদের শাসন নয়, অর্থ-কড়ির শাসন নয়, পরাক্রমশালীদের শাসন নয়। গণতন্ত্র মানে দল-মত নির্বিশেষে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনকে সম্মান করা। নির্বাচনে জিতুন বা হারুন, ফলাফল মেনে নিতে হবে।’ ট্রাম্প অবশ্য দীর্ঘদিন ধরে দাবি করে আসছেন, ২০২০ সালের নির্বাচনে ভোটার জালিয়াতির মাধ্যমে তার কাছ থেকে জয় ‘চুরি’ করে নেওয়া হয়েছিল। যদিও নিজের এই অভিযোগ বা দাবির পক্ষে কখনোই কোনও প্রমাণ সামনে আনতে পারেননি ট্রাম্প।

বাইডেন অবশ্য প্রায়ই ট্রাম্পর্কে তার কঠোর সমালোচনার লক্ষ্যবস্তু করেন। চলতি মাসের তৃতীয় সপ্তাহে আগামী নির্বাচনে অংশ নেওয়ার ঘোষণা দিয়ে বাইডেন বলেন, ‘আমি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করব কারণ গণতন্ত্র ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। এ বিষয়ে কোনও প্রশ্নই থাকা উচিত নয় যে, ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং তার এমএজিএ (মেক আমেরিকা গ্রেট এগেইন) রিপাবলিকানরা আমেরিকান গণতন্ত্রকে ধ্বংস করতে বদ্ধপরিকর। আমি সর্বদা আমাদের গণতন্ত্রকে রক্ষা করব, সমুন্নত রাখব এবং (গণতন্ত্রের জন্য) লড়াই করব।’

এর আগে গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসের শুরুতেও ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং তার ‘চরমপন্থি’ সমর্থকদের তীব্র সমালোচনা করেছিলেন বর্তমান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। সেসময় ট্রাম্প ও তার সমর্থকদের গণতন্ত্রের জন্য হুমকি বলেও অভিহিত করেছিলেন তিনি।

শেয়ার করুন